ভারতকে উরিয়ে দিয়ে বিশ্বকাপ জিতলো বাংলার টাইগাররা।

Spread the love
বাংলাদেশ তুমি আজ সবার উপরে কারণ তোমার সন্তানরাই যে তোমাকে নিয়ে গেছে বিশ্বসেরার মঞ্চে।

যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে টস ভাগ্যে জিতে বাংলার কাপ্তান বল তুলে দিলেন শরিফুল,সাকিব আর অভিষেকের হাতে। বল তুলে দেওয়ার সময় আকবর হয়ত বলছিলেন তোমাদের হাতে এটা শুধু বল তুলে দিলাম না তুলে দিলাম পুরো বাংলার জনগণের ভাগ্য লিখার হাতিয়ার। বল হাতে নিয়ে ওদের মনের জোর আর শরীরের জোর যেন কথা বলল এক সুরে,যে সুরের ভাষা “আমরা করব জয় আজ নিশ্চয় “। ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা প্রথম দিকে রান তুলেছিল ঠিকই তবে বাংলার বাঘ অভিষেকের অতিমানবীয় বোলিং স্পেল যেন গুড়িয়ে দিল দাম্ভিক ভারতের ব্যাটিং স্কিল।

এক ইনর্ফম জেসওয়াল ছাড়া যেন কারো ব্যাটেই কথা বলেনি ওদের সুরে। ইনিংস সর্বোচ্চ জেসওয়াল ৮৮ রান করেন, আর সবাই মোট ১৭৭ রানের লক্ষমাত্রা ছুঁড়ে দেন বাংলাদেশের যুব টাইগারদের জন্য। বাংলাদেশের হয়ে অবিষেকের ৩টা উকেটের সাথে পুরো টুর্ণামেন্ট এ গতির সাথে সুইং বেলকি দেখানো সাকিব,শরিফুলের ২টা করে এবং রাকিবুলের ১টা ভারতীয়দের বাই বাই বললেন তাঁরা সেখানেই।

লক্ষ যখন ১৭৭ ব্যাট হাতে নামলেন তামিমের সাথে ইমন। ওদের ৫০রানের যুগলবন্দী বাংলাদেশকে দিল জয়ের জ্বালানী। ১৭ করে যখন তামিম ফিরে গেলেন তখন হঠাৎ করে বাংলার আকাশে দেখা দিল দুর্যোগ এর শঙ্কা। ১৫রানের মধ্যেই ৪ উইকেট এর পতন সাথে রির্টায়েড হার্ট হয়ে মাঠের বাহিরে ইমন।

মাঠে নামলেন বাংলার কাপ্তান আকবর যেন বুকের মধ্যে পুরো দেশটার চিত্র ভেসে উঠেছিল,কারণ তাঁর ব্যাটের দিকেই তাঁকিয়ে ছিল যে ১৬কোটির চোখের মণি। তিনি ও খেললেন আকবরী ভেসে যাকে ইংরেজিতে বলে “Captain knock must be the win”। তড়িঘড়ি করে শামীম আর অবিষেক ফিরে গেল ও ইমন আবারো ফিরে আসলেন সুস্থ হয়ে ময়দানি মাঠে। আকবর আর ইমনের ৪৬ রানের জোট বাংলাদেশকে ফেরায় ম্যাচে। ইমন যেন আহত বাঘের মত ফিরে এসে স্বপ্ন দেখালেন পুরো বাংলাদেশকে। ৪৭ রানে ইমন ফিরে গেলে ও যেটা করার সেই জয়ের ভীত গড়ে দিয়ে গেছেন দেশকে তার এই ইনিংস এ খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে রান নেওয়া যেন বলছিল বাঙালী জাতি হারার আগে হারতে রাজি না। জান দেব তবে মান দেবনা।

শেষের দিকে বৃষ্টি নামলে ও সেটা খুব বেশি স্থায়ী হয়নি। বৃষ্টি আইনে বাংলাদেশের লক্ষ দাঁড়ায় ১৭০,মানে ২৫ বলে ৬রান। রাকিবুলের ব্যাটে যখন আসল জয়সূচক রানটি পুরো ৫৬,০০০ হাজার বর্গমাইল যেন হাঁসল আপন মহিমায়।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *