কাসেম সোলাইমানীর হত্যায় ব্যবহৃত হয়েছিল পৃথিবীর সবথেকে শক্তিশালী ড্রোন বিমান।

Spread the love

ইরানের সব থেকে বড় সামরিক নেতা কাসেম সোলাইমানীকে হত্যার করার পরিকল্পনায় অবশেষে সফল হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। কাসেম সোলাইমানি যাকে বলা হত পুরো মিডিল ইস্ট দেশ গুলোর একজন অন্যতম সামরিক নেতা। যার সামরিক জ্ঞান এত প্রখর ছিল যে মাত্র ৫ মাসের সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়েই ইরানের জেনারেল হয়ে ছিলেন। ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা “আয়াত উল্লাহ আলি খামিনি” বলেন কাসেম সোলাইমানি হলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এর পররাষ্ট্র মন্ত্রীর সমতুল্য। তাঁর তৈরী “কোদস” ফোর্স এখন ও কয়েকটা দেশে আই এস আই এর বিরুদ্ধে লড়াই করতেছে।

মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র অনেক দিন থেকে কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল কারণ হিসেবে বলা হয়েছে সোলাইমানি আমেরিকার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র করতেছে,তাই তাকে হত্যা করা হয়েছে।তাঁকে হত্যার জন্য ট্রাম্প সরকার পৃথিবীর সব থেকে দামি ড্রোন বিমানটি ব্যবহার করেছে যার নাম “এম কিউ-৯ রিপার(MQ-9 Reaper)।এই রিপার বিমানটি আমেরিকা প্রাথমিকভাবে আকাশে উড়ায় ২ ফেব্রুয়ারি ২০০১ সালে।ড্রোনটি যুক্তরাষ্ট্র এর সেনাবাহিনীকে যেকোন বড় ধরণের যুদ্ধের জন্য ব্যবহার করতে দেওয়া হয়েছিল।

এই ড্রোনটি আরো ব্যবহার করতেছে,

১।ইউ এস এয়ার ফোর্স।

২।ইউ এস এর সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

৩।ইতালিয়ান এয়ার ফোর্স।

৪। রয়্যাল এয়ার ফোর্স এ।

এই এম কিউ-৯ রিপারটির দাম ৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার বাংলাদেশি টাকায় যা দাঁড়ায় ৫৪ কোটি ৩৫ লক্ষ টাকা।শক্তিশালী ড্রোনটির পাখার প্রসারতার দৈঘ্য ২০ মিটার।কাসেম সোলাইমানিকে গাড়িতে কেপনাস্ত্র ছোঁড়ার আগে ১০ মিনিট আকাশে দৃশ্যমান ছিল রিপারটি।মার্কিনীদের এই এম কিউ-৯ রিপারটি ঘন্টায় ৪৮২ কিলোমিটা বেগে চলতে পারে।এই ড্রোনটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক ইনফ্রারেড ক্যামেরা যা খুব দূরদর্শী সম্পন্ন যা রাতের বেলায় পরিষ্কার ভাবে ছবি তুলে পাঠাতে পারে যুদ্ধ ঘাঁটিতে।এম কিউ-৯ রিপার এ একবার জ্বলানি ভরলে প্রায় ১ হাজার ৮০০ কিলোমিটার পর্যন্ত হামলা চালাতে সক্ষম।তাই বলাই এই ড্রোনটি এখন পর্যন্ত পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম শক্তিশালী একটি ড্রোন

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *