এবার নিউইয়র্কে নতুন একটি ভাইরাসে আক্রান্ত কয়েকজন শিশু।

এবার নিউইয়র্কে নতুন একটি ভাইরাসে আক্রান্ত কয়েকজন শিশু।
Spread the love

পৃথিবীর মধ্যে করোনাভাইরাসে সব থেকে বিপর্যস্ত শহর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক। তবে এই নিউইয়র্ক শহরে এবার নতুন আরেকটি ভাইরাস দেখা দিয়েছে কয়েকজন শিশুর মধ্যে।

নিউইয়র্ক শহরের কুইন্স বরোর রিচমন্ড হিলে বাস করেন হার্দোয়ার পরিবারটি। গত এপ্রিল মাসে যখন নিউইয়র্ক শহরের হাসপাতালগুলোতে করোনা আক্রান্ত রোগীদের উপচে পড়া ভিড়। নিউইয়র্কের মানুষের একটাই প্রার্থনা ছিল যে, নিজের বা পরিবারের কেউ যেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত না হয়। সবার একটাই চাওয়া পৃথিবী যেন করোনা মুক্ত হয় খুব তাড়াতাড়ি। সবাই চাইছেন যে এমন কোন অসুখ যেন না হয় যে হাসপাতালে যেতে হয়।

ই সময়ে হার্দোয়ার পরিবারটির সদস্য আট বছরের জেইডেনের হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ দেখা দিলে পরিবারটি বসে থাকতে পারে না। দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে। জেইডেনের বাবা সন্তানের পালস চেক করে দেখেন তার পালস নেই। জেইডেনের বড় ভাই স্কাউট ট্রেনিং করেছিলেন। তিনিও অ্যাম্বুলেন্সে আসার আগ পর্যন্ত ভাইয়ের উপর সব রকম প্রাথমিক চিকিৎসা চালান। তবে তিনিও পালস পাননি।

হাসপাতালে পরীক্ষার পর চিকিৎসকরা জানান, জেইডেন পেডিয়াট্রিক মাল্টি-সিম্পটম ইনফ্লেমেটরি সিনড্রোম ( পিএমএসআইএস) রোগে আক্রান্ত। চিকিৎসকরা বলেন নতুন এই রোগটি খুবই বিরল। রোগটি কোভিড-১৯ সম্পর্কিত বলে গবেষকরা সম্প্রতি আশংকা প্রকাশ করেছেন। তাঁরা বলেছেন, এটি করোনাভাইরাসের ভিন্ন ভার্সন।

আর এই রোগে হয়ে ইতিমধ্যে নিউইয়র্ক শহরে পাঁচ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। নতুন এই ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ৮৫ শিশু। তারা এখন নিউইয়র্কের বিভিন্ন হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

অঙ্গরাজ্যের গর্ভনর বিষয়টি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। শিশুদের মধ্যে সংক্রমিত ভয়াবহ এই নতুন ভাইরাসটি নিয়ে বিশেষ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন গর্ভনর কুমো। জেইডেন অবশ্য দীর্ঘ নিবিড় পর্যবেক্ষণের পর সেরে উঠেছেন। ১১ মে সোমবার তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *