করোনা মহামরীতে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রেকর্ড পরিমাণ রিজার্ভ

করোনা মহামরীতে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রেকর্ড পরিমাণ রিজার্ভ
Spread the love

করোনাভাইরাসের কারণ সারা পৃথিবীর অর্থনীতি বিরাট সংকটে। বাংলাদেশের অর্থনীতি অনেকটা নেমে গেছে। তবে এসবের মধ্যে ভালো খবর হল এই মহামারীর সময়েও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রেকর্ড পরিমাণ হয়েছে।

করোনাভাইরাসের মধ্যে গত ১ ও ২ জুন প্রবাসী আয়, অনুদান ও ঋণ হিসেবে ১৬ কোটি ডলার এসেছে। এর ফলে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ অতিথের সব রেকর্ড ভেঙে প্রথমবারের মত ৩ হাজার ৪০০ কোটি ডলার বা ৩৪ মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। যা দেশের ইতিহাসে রেকর্ড পরিমাণ রিজার্ভ।

জানা যায়, পবিত্রা ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রবাসীরা গত মাসে যে পরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন,যার পরিমাণ ১৫০ কোটি ৩০ লাখ ডলার। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ ১২ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। এর ফলে গত ১ জুন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩ হাজার ৩৪৬ কোটি ডলার, যা গতকাল বেড়ে হয় ৩ হাজার ৪২৩ কোটি ডলার।

এর আগে ২০১৭ সালে দেশে প্রথমবারের মত রেকর্ড ৩ হাজার ৩০০ কোটি ডলার ছাড়িয়েছিল। আর এই রেকর্ড ভেঙে এখন ২০২০ সালে ৪ জুন সেই সময় থেকে ১০০ কোটি ডলার বেড়ে ৩ হাজার ৪০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে গেল। দেশের এই কঠিন সময়ে বৈদেশিক মুদ্রার এই রিজার্ভ একটু হলেও স্বস্তিদায়ক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলেছেন, করোনার কারণে আমদানি ব্যয় কমে গেছে। আবার রপ্তানি আয়ও কম। তবে প্রবাসী আয় আসছে, সঙ্গে ঋণ ও অনুদানও। এ কারণে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ছে।

তবে এটা কত দিন ধরে রাখা যাবে, তা নির্ভর করছে রপ্তানি ও প্রবাসী আয় আসার উপর। কারণ দেশের অর্থনীতি সচল করতে আমদানি বাড়াতেই। আমদানি না বাড়লে দেশের অর্থনীতি নিচে নেমে যাবে। এতে খরচ হবে ডলার। যা ব্যয় হবে রিজার্ভ থেকেই।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *