সৌদি হজের অনুমতি দিল সীমিত আকারে

সৌদি হজের অনুমতি দিল সীমিত আকারে
Spread the love

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসে সারা পৃথিবী মুখ তুবড়ে পড়ে গেছে। করোনা মহামারী থেকে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার কারণে দেশে দেশে চলছে লকডাউন। সৌদি আরবও করোনাভাইরাস মোকাবেলায় লকডাউন এর সাথে কারফিউ জারি করতেছে তাদের দেশে। তবে আগত হজ নিয়ে চলতেছিল দুলাচল। এই বৎসর হজ হবে কি না?

তবে এই কঠিন পরিস্থিতিতে সীমিত আকারে হজ পালনের অনুমতি দেয়া হতে পারে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সৌদি আরব এমন কঠিন পরিস্থিতিতে প্রতিটি দেশ থেকে মাত্র ২০ শতাংশ নাগরিককে হজ পালনের সুযোগ দিবে।

সৌদিতে কয়েকদিন থেকে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ইতিমধ্যে দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ছাড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত ৭০০ এর উপর মানুষ মারা গেছেন করোনায়। সেই সাথে প্রতিদিন বাড়ছে করোনাভাইরাসে রোগীর সংখ্যা।

এই অবস্থায় হজ হবে কি না সবার মনে প্রশ্ন ছিল। তবে সব দিক বিবেচনা করে সীমিত আকারে হজ পালনের অনুমতি দিবে সৌদি প্রশাসন।

সংশ্লিষ্ট দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, সৌদি কর্তৃপক্ষ এবার ‘ প্রতীকী সংখ্যায় ‘ মুসল্লিদের হজের অনুমতি দিবে। তবে বয়স্ক ব্যক্তিরা এ সুযোগ পাবেন না। রয়টার্স আরো জানায়, কর্তৃপক্ষ কঠোর প্রক্রিয়ায় প্রতিটি দেশ থেকে মাত্র ২০ শতাংশ নাগরিককে হজ করার অনুমতি দিবে।

তবেই তিনটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, সৌদির কিছু উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা করোনা ঝুঁকির কারণে হজ বাতিলের চাপ দিতেছে। তবে এই বিষয়ে হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় কোনো মুখপাত্র কোনো মন্তব্য করেননি।

সব মুসলমান জীবনে একবার হলেও হজ করতে চায়। সেই হিসেবে প্রতি বছর ২৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান হজ করতে সৌদি ভ্রমণ করেন। হজ ও ওমরাহ হজ হতে সোদি আরব প্রতি বছর প্রায় ১ হাজার ২০০ কোটি ডলার আয় করে।

এর আগে গত গত মার্চে এখনই হজের পরিকল্পনা না করে মুসল্লিদদের করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতি স্পষ্ট হওয়ার আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করার পরামর্শ দেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। সেই সময় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ করা হয় ওমরাহ হজ। চলতি বছর জুলাইয়ে শেষ নাগাদ হজের কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

গত বছর প্রায় ২ কোটি হজযাত্রী ওমরাহ পালন করেন। হজ করেন প্রায়য় ২৬ লাখ। যেখানে এই বছর মাত্র ৫ লাখ মুসল্লি হজ করার অনুমতি পাবেন।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *