বিরাট অংকের কর প্রাপ্তি হতে বঞ্চিত হচ্ছে বাংলাদেশ।

যে কোন দেশের উন্নয়নের প্রধান চালিকা শক্তি হচ্ছে সেই দেশের শক্ত অর্থনীতি।আর যে কোন দেশের অর্থনীতির বিরাট একটা অংশ আসে দেশ এবং বিদেশের নাগরিক কতৃক প্রদানকৃত কর হতে। তবে হিসাবমতে দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশে অবস্থানরত যেসব বিদেশী নাগরিক বিভিন্ন জায়গায় চাকরিতে নিয়োজিত তাঁদের থেকে যে পরিমাণ কর পাওয়ার কথা, তাঁরা নিয়ম মাফিক কর প্রদান করতেছেন না। বিপুল হারে সেসকল নাগরিক কর ফাঁকি দিতেছে। বাংলাদেশে যেসব বিদেশী নাগরিক চাকরি করতে আসে তাঁদের অধিকাংশেই আসে ভারত থেকে।

এই সকল নাগরিকের বেশিরভাগই পোশাক খাতে নিয়োজিত। তথ্য সুত্রে তাঁদের প্রত্যেকের সর্বোচ্চ বেতন মাসে $১২,০০০ মার্কিন ডলার এবং সর্বনিম্ন বেতন মাসে $৩,৫০০ মার্কিন ডলার।সরকারের তথ্য মতে বৈধভাবে ৮৫ হাজারের মত বিদেশী নাগরিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করতেছেন। তবে সম্প্রতি টি আই বি(TIV) এর তথ্যে উঠে এসেছে বাংলাদেশে বৈধ ও অবৈধভাবে অন্তত ৪৪টি দেশের প্রায় আড়াই লক্ষ বিদেশী নাগরিক কাজ করতেছে বিভিন্ন সেক্টরে। কিন্তু তাঁরা তাদের প্রাপ্ত এই অর্থ বৈধভাবে নিজ নিজ দেশে প্রেরণ করতেছে না,তাই এই প্ররণকৃত টাকা হতে যে কর প্রাপ্তির কথা সেটা পাচ্ছে না বাংলাদেশ সরকার।

এইসব নাগরিক প্রতিবছর তাঁদের দেশে অবৈধভাবে প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা কর ফাঁকি দিয়ে পাঠাচ্ছে। এই করের অংশ হতে বাংলাদেশ বঞ্চিত হচ্ছে যেটা দেশের অর্থনীতিকে বাধাগ্রস্থ করতেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *