মহামারি আকারে রুপ নিচ্ছে নোবেল করোনাভাইরাস।

চায়না যেন এখন নোবেল করোনাভাইরাস এর আক্রমণে দিশেহারা। সব শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নোবেল করোনায় আক্রান্ত ১০০০০ হাজার আর মৃতের সংখ্যা ২১৩। এরই মধে বিশ্বের অনেক দেশ চায়নার সাথে অর্থনৈতিক সহ সব ধরণের যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে।

রাশিয়ার সাথে চায়নার যে সীমানা রয়েছে সেটা দিয়ে কোনো রকম পণ্য বা চায়নার কোনো পর্যটক ঢুকতে না পারে সেই ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া।ত্রিনিদাদ এন্ড টোবাগোর এয়ারপোর্ট গুলোতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যেন চায়না থেকে কোনো পর্যটক না আসতে পারে। এরই মধে খবর বেরিয়েছে পুরো ইউরোপে আস্তে আস্তে ছড়িয়ে পড়েছে নোবেল করোনা ভাইরাস। কানাডাতে ২জনকে সনাক্ত করেছে কানাডিয়ান প্রশাসন।পুরো ইউরোপ নড়েচড়ে বসেছে এই ভাইরাস থেকে নিজেদের দেশকে নিরাপদে রাখতে।

বাংলাদেশ সরকার ও আজ রাতে বিশেষ চার্টাড বিমান পাঁঠাচ্ছে চায়নায় সেখান থেকে ৩২৯ জন যাত্রী নিয়ে আজ রাতেই দেশে ফিরবে বিমানটি।সেই সাথে যারা এই বিমানে ফিরবেন তাঁদের সবাইকে সঠিকভাবে পরীক্ষা করে বিমানবন্দর থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হবে,যদি কারো শরীরে নোবেল করোনাভাইরাস এর জীবাণু পাওয়া যায় তাহলে তাকে সরকারের খরচে বিশেষ ব্যবস্থায় চিকিৎসা দেওয়া হবে।

অন্যদিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর মহাপরিচালক বলেছেন চায়না থেকে যাত্রী নিয়ে যে বিমানটি আসবে সেটাকে সাথে সাথে জীবাণুমুক্ত করা হবে ভালোভাবে। এদিকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড:একে আব্দুল মোমেন প্রেসকনফারেন্স এ বলেছেন চায়নাতে বাংলাদেশের ৫০০০ হাজারের মত শিক্ষার্থী রয়েছে তাদের মধ্যে যারা ফিরতে চায় সবাইকে সরকারের খরচে ফিরিয়ে আনা হবে।

চায়ান সরকারকে এই কঠিন সময়ে মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তহবিল দিয়েছেন আলীবাবার কর্ণধার জ্যাক মাঁও।নোবেল করোনাভাইরাস এর ভ্যাকসিন আবিষ্কার এর চায়না সহ উন্নত বিশ্বের সব দেশ সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।পুরো চায়না যেন এখন আতংকের নগরীতে পরিণত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *